রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধান আঞ্চলিক নিরাপত্তায় গুরুত্বপূর্ণ

মিজানুর রহমান,বিশেষ প্রতিনিধি : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন বিগান বলেছেন, বাংলাদেশে অবস্থান নেওয়া রোহিঙ্গা সংকটের দ্রুত ও স্থায়ী সমাধানকে আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার দিক থেকেই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনা করছে যুক্তরাষ্ট্র। এ সংকট সমাধানে চীনের আরও ভালো ভূমিকা রাখার সুযোগ আছে।

বাংলাদেশ সময় গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওয়াশিংটন ডিসি থেকে বাংলাদেশ ও ভারতের সাংবাদিকদের সঙ্গে টেলিফোনিক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন তিনি।

স্টিফেন বিগান বলেন, ১৪ থেকে ১৬ অক্টোবর বাংলাদেশে তার প্রথম সফর হলেও এটি তার জন্য স্মৃতিময় হয়ে থাকবে। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠকের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই আলোচনার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ সম্পর্কে ভালোভাবে জানার সুযোগ হয়েছে আমার। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির যে চিত্র, তা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক। এই এগিয়ে যাওয়ার পথে বাংলাদেশের জন্য যুক্তরাষ্ট্র আরও কতটা সহযোগীর ভূমিকা রাখবে, তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক বিষয়ের পাশাপাশি বিজ্ঞান, তথ্যপ্রযুক্তি, নিরাপত্তা ও যোগাযোগ বৃদ্ধিতে সহযোগিতার বিষয়সহ রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত উদার ও মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিচয় দিয়েছেন। এটি বাংলাদেশের জনগণেরই মনোভাবের প্রতিফলন। এই সংকট সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র শুরু থেকেই বাংলাদেশের পাশে আছে। বর্তমানে এ সংকট আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার জন্য একটি বড় সমস্যা তৈরি করতে পারে বলে বিবেচিত হচ্ছে। এ বিবেচনায় এ সংকটের দ্রুত ও স্থায়ী সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র গুরুত্ব দিচ্ছে। এক্ষেত্রে মিয়ানমার সরকারকে ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে এবং চীনেরও আরও ভালো ভূমিকা রাখার সুযোগ আছে।

যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী এক বাংলাদেশি সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বজুড়ে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, বাকস্বাধীনতা, মানবাধিকার রক্ষা এবং সুশাসনকে উৎসাহিত করে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও একই নীতি অনুসরণ করে। যুক্তরাষ্ট্র মনে করে প্রতিটি দেশের জনগণই কেবল তাদের শাসন ক্ষমতার পরিবর্তন ও উন্নয়নের ধারা নির্ধারণ করতে পারে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও একই দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করে যুক্তরাষ্ট্র।

স্টিফেন বিগান বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র দুই দেশের যৌথ সহযোগিতার সম্পর্ক আরও জোরদার করতে চায় এবং বাংলাদেশের জনগণের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র সব সময় আছে। আমার সফরের মধ্য দিয়ে এই নীতির প্রতিফলনের বিষয়টি আরও পরিস্কার হয়েছে।