চট্টগ্রাম নগরীর রক্তযোদ্ধা হতে চায় প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পিনন – Bangla Khobor

আহম্মেদ সাব্বির আকাশ(বিশেষ প্রতিনিধি)

বর্তমানের বিংশ শতাব্দীতে মানুষ যুগের সাথে তার মিলাতে গিয়ে নিজের মূল্যবোধের যে অবক্ষয় করছে তারই মাঝে কিছু তরুন মানবতার সেবায় নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন অকাতরে । দুর্ঘটনা কিংবা প্রসূত মায়ের জন্য প্রায়সই খবর পাই। কিন্তু মানবতার টানে কত জনই বা আসে।

প্রশ্ন থেকে যায় তবে কি মানুষের মানবতা এতোটাই নষ্ট হয়ে গিয়েছে। না! তাই তো চট্টগ্রামের প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পিনন এগিয়ে এসেছেন মানবাতার এই মহান কাজে।

চট্টগ্রামে মহানগরে রক্তের প্রয়োজন এখন অনেকেই কাজ করেন !তবুও রক্তের সংকট থেকেই যায়।সে জন্য একজন রক্তযোদ্ধা হয়ে মানুষের পাশে থাকার পণ করেছেন ।

বাংলা খবর নিউজের প্রতিনিধির প্রশ্নে উওরে পর্বে তার কাছে জানতে চাওয়া হয় “আপনি এই কাজে অনুপ্রেরণা পেলেন কোথা থেকে বা কিভাবে আপনি অনুপ্রাণিত হলেন?”

উওরে পিনন বলেন, “আমি বলবো এই কাজের আমি মুল প্রেরণা পেয়েছি আমার ঢাকার ৩ জন ভাই বোনের কাছে। আমি তাদের কে দেখে খুবি অনুপ্রাণিত হয়েছি এবং হই সবসময় রক্ত সংগ্রহ করার কাজে। উনাদের একজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক পাঠাগার বিষয়ক উপ-সম্পাদক “রুশী চৌধুরী” আপু, দ্বিতীয় জন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গনযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক উপ-সম্পাদক “সুশোভন সরকার অর্ক” ভাই ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষার্থী, ছাত্রলীগ নেতা ছোটভাই “অর্ক সাহা”। তাদের ৩ জনই পুরো বাংলাদেশে রক্ত সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত আছেন। তাদের কাজেই আমি অনুপ্রাণিত হয়ে চট্টগ্রামে মানুষকে রক্ত সংগ্রহ করে দেয়ার কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে চাই। ব্লাড ম্যানেজিং এ ওরা ৩ জনই মুলত আমার আইডল বলতে পারেন।”

তার কাছে জানতে চাওয়া হয় তার কাছে জানতে চাওয়া হয় এখন পর্যন্ত কোন বাধা পেয়েছেন কিনা?

উত্তরে তিনি বলেন, “না কোন বাধা পাইনি আলহামদুলিল্লাহ। তবে খুব বেশী সহযোগীতা পাচ্ছি সবার কাছে। সবাই খুব উৎসাহ দিচ্ছেন।”

তিনি আরো বলেন,’ “রক্ত দিবো, জীবন বাঁচাবো”স্লোগানে একজন রক্তযোদ্ধা হয়ে চট্টগ্রাম নগরীর মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই”